২৯ মে ২০২৪, বুধবার, ০৬:১৭:৫২ পূর্বাহ্ন


ইসলামের দেখানো সঠিক পথে হেঁটে সাফল্যের আলো দেখেছে উজবেকিস্তান
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৮-০৯-২০২৩
ইসলামের দেখানো সঠিক পথে হেঁটে সাফল্যের আলো দেখেছে উজবেকিস্তান ছবি: সংগৃহীত


সম্প্রতি, উজবেকিস্তানের গ্র্যান্ড মুফতি নুরুদ্দিন খলিকনাজারভ বলেছেন যে ইসলামে কোনও পোশাকের কঠোর কোড নেই। ধর্মীয় পোশাক পরার সংস্কৃতিকে নিয়ে বাড়াবাড়ি করা হয় এখানে। মুফতি ব্যাখ্যা করেন যে "এমন একটা ধারণা তৈরি হয়েছে যে ইসলাম মানে নির্দিষ্ট পোশাক এবং একটি নির্দিষ্ট চেহারা।

আমাদের নবী আমাদের জন্য একটি নিয়ম রেখে গেছেন। ইসলামের একটি নির্দিষ্ট রূপ নেই, এটি একটি জাতির ধর্ম নয়, এটি একটি জলবায়ুর ধর্ম নয়"। গ্র্যান্ড মুফতির এই ঘোষণা শুধুমাত্র তাঁর মুসলিম হওয়ার পরিচয় দেয় না, সেইসঙ্গে তার উজবেক পরিচয়েরও সফল প্রতিফলন। উজবেকিস্তান একটি ইউনিক দেশ। এটি মুসলিম বিশ্বের কিছু অসামান্য ব্যক্তিত্বের জন্মস্থান যেমন হাদীসের প্রথম সংকলক (ইসলামের নবী মোহাম্মদের ঐতিহ্য) ইমাম মহম্মদ ইবনে ইসমাইল আল-বুখারি এবং নকশাবন্দী সুফি আদেশের প্রতিষ্ঠাতা বাহাউদ্দিন নকশবন্দীর জন্মস্থান ।

মধ্যযুগে বুখারা ও সমরকন্দ শহরগুলো ইসলামী শিক্ষার কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত ছিল। এটি অসংখ্য ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতির প্রভাবের ফলাফল যা প্রাচীন সিল্ক রুট বরাবর সেখানে পথ অতিক্রম করেছে। পরে অঞ্চলগুলি রাশিয়ান জারবাদী সাম্রাজ্যের উপনিবেশে পরিণত হয়। সোভিয়েত শাসন আশীর্বাদ এবং অভিশাপ উভয়ই হয়ে ওঠে। যদিও কমিউনিজম ধর্ম এবং ধর্মীয়তাকে দূরে সরিয়ে দিয়েছিল, কিন্তু মানুষের হৃদয়ে ধর্মের শক্তিশালী ভিত্তিকে নষ্ট করতে পারেনি। তবে আফগানিস্তানের মত এখানে স্কুলে যেতে হিমশিম খেতে হয় না মহিলাদের।

উজবেকিস্তানও এই ধরণের হুমকির সম্মুখীন হয়েছিল। হিযবুত তাহরীরের মত দলগুলো তার মতাদর্শ প্রচারের জন্য নীরবে কাজ করতে থাকে। এটি সশস্ত্র সংগ্রাম ছাড়াই শরিয়া আইন স্থাপন করতে চায়। আরব বিশ্ব, পাকিস্তান ও তুরস্ক থেকে ইসলাম প্রচারক ও তহবিল দেশে আসতে শুরু করে। অবশেষে, সরকার কড়া হাতে এদের দমন করে। তবে অতি সম্প্রতি ইসলামিক স্টেট (আইএসআইএস) ইরাক ও সিরিয়ায় যাওয়ার জন্য এখানে প্রবেশ করেছে এবং নিজেদের যোদ্ধাদের নিয়োগ করেছে।

উজবেকিস্তান আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অনেক সমালোচনার সম্মুখীন হলেও হাল ছাড়েনি। ফলাফল তাই সবার সামনে। ঝকঝকে নতুন বাণিজ্যিক এবং আবাসিক ভবন, আরও স্কুল, এবং বিশ্ববিদ্যালয় সহ সাংবাদিকতা এবং মিডিয়া নিয়ে পড়াশোনার জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়। দেশটির সাক্ষরতা ৯৭% এবং উচ্চ শিক্ষায় তালিকাভুক্তি ৯% থেকে বেড়ে ৩৮% হয়েছে। উজবেকিস্তান তাই এখন দ্বিতীয় দ্রুততম বর্ধনশীল অর্থনীতি ।