০৫ মার্চ ২০২৪, মঙ্গলবার, ০৭:০৫:২৮ পূর্বাহ্ন


মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের হিন্দু ধর্ম শিক্ষা দিয়ে পরিদর্শকের সাথে হিন্দু বলে পরিচয় দিলেন শিক্ষিকা
নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট করা হয়েছে : ১১-১০-২০২৩
মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের হিন্দু ধর্ম শিক্ষা দিয়ে পরিদর্শকের সাথে হিন্দু বলে পরিচয় দিলেন শিক্ষিকা


“রাণীনগর নৈশ বিদ্যালয়ে মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের হিন্দু ধর্ম শিক্ষা দিয়ে পরিদর্শকের সাথে হিন্দু বলে পরিচয় দিলেন, কাব্যতীর্থের শিক্ষিকা ববিতা শাহ 

রাণীনগর নৈশ উচ্চ বিদ্যালয়ে নতুন হিন্দু শিক্ষা কার্যক্রম ভিজিট করতে এসেছিলেন রাজশাহী ক্যান্টমেন্ট পাবলিক স্কুল এ্যান্ড কলেজের শিক্ষক সুকান্ত পাল।  

সোমবার ৯ (সেপ্টেম্বর) রাত ৭টার দিকে হিন্দু ধর্ম শিক্ষা ব্যবস্থা পর্যবেক্ষনের জন্য রাণীনগর নৈশ বিদ্যালয়ে আসেন তিনি। এদিন কাব্যতীর্থের শিক্ষক ববিতা শাহ ক্লাশ ওয়ানের ৭/৮জন মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের ৬ষ্ট ও ৭ম শ্রেণী কক্ষে বসিয়ে ক্লাশ নেয়ার নাটক করেন।

পরিদর্শক সুকান্ত পাল ক্লাশ পরিদর্শণকালে কাব্যতীর্থের শিক্ষিকা ববিতা শাহ ক্লাশ ওয়ানের ছাত্র-ছাত্রীদের ৬ষ্ট ও ৭ম শ্রেণীর হিন্দু ছাত্র-ছাত্রী বলে পরিচয় করিয়ে দেন পরিদর্শকের সাথে। বলেন, আরও ছাত্র-ছাত্রী আছে যারা নিজ কর্মক্ষেত্র থেকে ছুটি পাইনি। তাই স্কুলে আসতে পারেনি। অথচো রাণীনগর নৈশ বিদ্যালয়ে কোন ক্লাশেই একটিও হিন্দু ছাত্র-ছাত্রী নাই। কিন্তু মুসলিম ছেলে মেয়েদের পূর্জা অর্চনার প্রাথমিক শিক্ষা দিয়ে ক্লাশে বসিয়েছিলেন এই শিক্ষিকা। এ নিয়ে স্থানীয়দের মধ্যে ব্যপক ক্ষেভের সৃষ্টি হয়েছে। 

রাণীনগর এলাকার স্থানীয় ব্যক্তি সম্রাট জানায়, মুসলিম ছেলেদের হিন্দু শিক্ষা দেয়া হলো কেন ? এবং নিজ চাকরি রক্ষা করতে হিন্দু শিক্ষিকা মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের হিন্দু ধর্ম শিক্ষা দিলো কেন ?  বলে ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। এ নিয়ে স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গের সাথে আলাপ-আলোচনা করে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃূপক্ষের দারস্ত হবেন বলেও জানান তিনি। 

এ বিষয়ে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ নাসিরুদ্দিন (ডিইও) জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের পরিচয় গোপন করা এবং মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের হিন্দু বলে পরিচয় দিয়ে কাব্যতীর্থের শিক্ষকা ববিতা শাহ অন্যায় করেছেন। উর্দ্ধতম কর্মকর্তার সাথে আলাপ করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার হবে বলেও জানান তিনি।