২৯ মে ২০২৪, বুধবার, ০৫:০৪:০২ পূর্বাহ্ন


কড়া নিরাপত্তায় দেশ ছাড়লেন সালমান
তামান্না হাবিব নিশু
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৯-০৪-২০২৪
কড়া নিরাপত্তায় দেশ ছাড়লেন সালমান ছবি: সংগৃহীত


শুক্রবার মুম্বই বিমানবন্দরে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দেখা গেল সালমান খানকে। পাপারাৎজিদের ভিডিয়োতে অভিনেতা, তাঁর দেহরক্ষী শেরা এবং নিরাপত্তারক্ষীদের বিমানবন্দরের গেটের ভিতরে ঢুকতে দেখা যায়। রবিবার বান্দ্রার গ্যালাক্সি অ্যাপার্টমেন্টে শ্যুটারদের হামলার ঘটনার পর এই প্রথম মুম্বই থেকে উড়ে যাচ্ছেন সালমান।

দুবাইয়ের উদ্দেশে রওনা হওয়ার সময় বিমানবন্দরে গাড়ি থেকে নামলেন সালমান। অভিনেতার পরনে ছিল কালো টি-শার্ট, সঙ্গে ম্যাচিং প্যান্ট ও সানগ্লাস। বিমানবন্দরের বাইরে উপস্থিত পাপারাজ্জিদের তিনি দূর থেকে মাথা নেড়ে শুভেচ্ছা জানান।

মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চের কর্মকর্তারা বুধবার জানিয়েছেন, সালমানের বান্দ্রার বাড়ির বাইরে গুলি চালানোর ঘটনায় জড়িত ব্যক্তিরা অভিনেতাকে ভয় দেখাতে চেয়েছিল, খুন করতে চায়নি।

সঙ্গে জানানো হয়, পানভেলে সালমান খানের ফার্ম হাউসেও 'রেইকি' চালায় অভিযুক্তরা। তারা শুধু সালমান খানকে ভয় দেখাতে চেয়েছিল, তাঁকে হত্যা করতে চায়নি। দুই অভিযুক্তর পরিবারেরও বয়ান রেকর্ড করা হয়েছে বিহারে। মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, হরিয়ানা ও অন্যান্য রাজ্য থেকে প্রায় ৭ জনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডাকা হয়েছে। সূত্রের খবর, গুলি চালানোর মামলায় সাক্ষী হিসেবে সালমানের বয়ান রেকর্ড করবে মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চ।

রবিবার এই ঘটনার পর মুম্বই পুলিশের কর্মকর্তারা সালমানের বাড়িতে পৌঁছানোর পর, অভিনেতা তাঁর পরিবারের নিরাপত্তা নিয়ে ক্ষোভ ও উদ্বেগ প্রকাশ করেন। মুম্বই পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিয়েও প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, তাঁর বাড়িতে প্রচুর নিরাপত্তারক্ষী মোতায়েন থাকা সত্ত্বেও কেন এমন ঘটনা ঘটেছে।

আসলে কী ঘটেছিল

এর আগে মুম্বই ক্রাইম ব্রাঞ্চ জানিয়েছিল, হামলা চালানোর আগে দুষ্কৃতীরা অভিনেতার বাড়িতে নজরদারি চালিয়েছিল। গুলি চালানোর কিছুক্ষণ আগে হামলাকারীরা সালমানের বাড়ি থেকে প্রায় ১০০ মিটার দূরে একটি মোটরসাইকেল পার্ক করেছিল।

বাড়ির বাইরে লোকজনের অনুপস্থিতি নিশ্চিত হওয়ার পরে, বন্দুকধারীরা মোটরসাইকেলে সেখানে পৌঁছয় এবং ঘটনাস্থল থেকে পালানোর আগে প্রায় ২ রাউন্ড গুলি চালায়।

ফেসবুকে হুমকিমূলক ভাষা ব্যবহারের জন্য আনমোল বিষ্ণোইয়ের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছে মুম্বই পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, জেলবন্দি গ্যাংস্টার লরেন্স বিষ্ণোইয়ের ছোট ভাই আনমোল ফেসবুকে গুলি চালানোর ঘটনার দায় স্বীকার করে। এবং সেটি জানানোর সময় হুমকিমূলক ভাষাও ব্যবহার করেছিল।