০১ Jul ২০২২, শুক্রবার, ০৪:৪৯:১১ পূর্বাহ্ন


মাথাব্যাথা কমাতে ৫টি ঘরোয়া আয়ুর্বেদিক উপায়
ফারহানা জেরিন
  • আপডেট করা হয়েছে : ২৩-০৬-২০২২
মাথাব্যাথা কমাতে ৫টি ঘরোয়া আয়ুর্বেদিক উপায় ফাইল ফটো


রাস্তায় ট্র্যাফিকের মাঝখানে কিম্বা অফিসে কিংবা নিজের বাড়িতে, মাথাব্যাথার মোকাবেলা করা কখনওই সহজ হয় না। বেশীরভাগ সময়ই মাথাব্যাথাকে আমরা গুরুত্ব দিই না। আমরা মনে করি, এক কাপ কফি অথবা কিছু কাজের মধ্যে নিজেদেরকে ডুবিয়ে দিলে মাথা ব্যাথা আর থাকবে না। তবে মাঝেমধ্যে, এই দ্রুত সংশোধনের উপায়গুলো কাজ করলেও সব সময় করে না। আয়ুর্বেদ পদ্ধতিতে অনেক প্রাকৃতিক ঘরোয়া প্রতিকারের উল্লেখ আছে যা আমাদের মাথা ব্যাথা কমাতে কার্যকর।

এখানে কিছু ঘরোয়া আয়ুর্বেদ পদ্ধতিতে মাথাব্যথা সারিয়ে তোলার উপায় আলোচনা করা হল:

আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞ ডাঃ ধনভান্ত্রী ত্যাগীর মতে, “মাথাব্যথা নিরাময় করার সবচেয়ে ভাল প্রতিকার হল একটি সুস্থ মাথার ম্যাসেজ। ডিহাইড্রেশন হল পিত্ত টাইপের মাথাব্যথাগুলির অন্যতম কারণ। মাথাব্যাথা দূর করার জন্য জল ও স্বাস্থ্যকর পানীয় পান করুন। মাঝে মধ্যে, ঠান্ডা লেগে সর্দি কাশির সঙ্গে মাথা ব্যাথা হয়। এই সময়ে, ভেষজ তেল বা ঘি নাকের স্বাভাবিক বায়ু চলাচলে অত্যন্ত সাহায্য করে। “

তিনি কিছু খাবার এবং ভেষজ ঔষধের পরামর্শ দেন যা খুব সাহায্য করতে পারে।

ব্রাহ্মী: এটি স্ট্রেস ও বিষণ্নতা কমানোর জন্য পরিচিত। ব্রাহ্মীর রসের কয়েকটি ড্রপ এবং ঘি নাকের মধ্যে রাখলে মাথাব্যথা কমাতে পারে।

চন্দন: মাথাব্যথা নিরাময় করার জন্য অত্যন্ত পুরোনো প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি কপালের উপর চন্দন বা চন্দন কাঠের পেস্ট প্রয়োগ করা। চন্দন গুঁড়ো আধ চা চামচ নিন এবং এতে কিছুটা জল মেশান। মিশ্রণটি আপনার কপালে প্রয়োগ করুন এবং এটি অন্তত 20 মিনিট রাখুন।

টগর: টগর একটি লোমশ বহুবর্ষজীবি ঔষধি যা প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহার করা হয়। আপনি ম্যাসেজের জন্য ঔষধযুক্ত তেল ব্যবহার করতে পারেন, অথবা চায়ের মধ্যে সামান্য পরিমাণ মেশাতে পারেন।

ছোট এলাচ: সামান্য ছোট এলাচ চিবিয়ে মাথা যন্ত্রণা থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

রক সল্ট: মাঝে মাঝে, সাধারণ লবণের পরিবর্তে রক সল্ট ব্যবহার করে মাথা যন্ত্রণার প্রতিকার করা হয়। উষ্ণ গরম জলে এক চিমটে রক সল্ট মিশিয়ে পান করলে বিভিন্ন ধরণের মাথা যন্ত্রণার থেকে রেহাই পাওয়া যায়।

আপনার মাথাব্যাথার আয়ুর্বেদিক প্রকৃতিটি জানুন

আয়ুর্বেদে, মাথাব্যাথার ধরণগুলি ভাতা, পিত্ত ও কাঁপা হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ। মাথাব্যথার প্রকারভেদ আপনাকে নিখুঁত প্রতিকার নির্বাচন করতে সাহায্য করতে পারে।

মাথাব্যথা ভাতা টাইপ: এই টাইপের মাথাব্যাথা সাধারণত মাথার পেছনের অংশে হয়ে থাকে। ক্রমে পেছনের অংশ থেকে সামনে যেতে পারে। ঘাড়ে, কাঁধে ব্যাথা, কোষ্ঠকাঠিন্য, দেহের পিছনের অংশে ব্যাথাও এই ধরনের মাথাব্যথার কারণেই হতে পারে।

কীভাবে প্রতিকার পাবেন: ড: বসন্ত লাড তাঁর “দা কমপ্লিট বুক অফ হোম রেমিডিস” এ বলেছেন, প্রতিটি নাকের মধ্যে 3 থেকে 5 ফোঁটা উষ্ণ ঘি ছিটিয়ে মাথা ব্যথা কমাতে সাহায্য করতে পারে। আপনার দেহের জলসাম্য বজায় রাখুন, ডিহাইয়েড্রেশনের ফলেও মাথাব্যাথা হতে পারে। 1 টেবিল-চামচ চিনি এবং এক গ্লাস জলে 1 টেবিল চামচ চিনি এবং আধ চা চামচ লবণ মিশিয়ে পান করতে পারেন। বইটিতে আরও বলা আছে, কপালের উপর জায়ফল পাউডারের পেস্ট প্রয়োগ করতে পারেন।

পিত্ত মাথা ব্যাথা টাইপ: পিত্ত টাইপ মাথাব্যাথাগুলিতে, ব্যথা শীর্ষভাগ থেকে শুরু হয়ে মাঝের অংশ পর্যন্ত ছড়িয়ে যায়। তীব্র রোদে বেশীক্ষণ দাঁড়িয়ে থাকলে ও মশলাদার খাবার খেলে এই ধরণের ব্যথা বাড়তে পারে।

কী সাহায্য করতে পারে: দুই টেবিল চামচ আলোভেরা জেল প্রতিদিন অন্তত তিনবার প্রয়োগ করলে রেহাই পাওয়া যায়। এছাড়াও কপালে চন্দনবাটা প্রয়োগ করতে পারেন কিম্বা জিরে ও ধনেপাতা মিশ্রিত চা পান করেও একইভাবে উপকার পাওয়া যায়, ডঃ বসন্ত লাদ জানিয়েছেন।

এই ধরণের মাথাব্যথা সাধারণত শীতকালে বা বসন্ত ঋতুতে ঘটে থাকে। এটি প্রায়ই সকালে বা সন্ধ্যায় হয় এবং আপনাকে দুর্বল করে দেয়, লিখেছেন ডঃ বসন্ত লাদ। এই ধরনের মাথাব্যথায় প্রায়ই বন্ধ নাকের সমস্যা দেখা যায়।

কী সাহায্য করতে পারেন: কপালে আদা পেস্ট প্রয়োগ করা হচ্ছে অত্যন্ত পরিচিত ও কার্যকর পদ্ধতি। তবে, কিছু ক্ষেত্রে চামড়ার উপর পেস্ট প্রয়োগের কারণে জ্বলন হতে পারে। এ ক্ষেত্রে অতি দ্রুত আপনার ডাক্তারদের সাথে পরামর্শ করুন। নাকের মধ্যে লবণাক্ত উষ্ণ জল প্রবেশ করালে মাথা ব্যাথা ও বন্ধ নাকের সমস্যা থেকে রেহাই পাওয়া যায়, ডঃ বসন্ত লাদ জানিয়েছেন।

রাজশাহীর সময়/এএইচ