০৬ ডিসেম্বর ২০২২, মঙ্গলবার, ১২:৪৮:১০ অপরাহ্ন


বাংলাদেশ ওয়ানডেতে কেন এত শক্তিশালী
ক্রীড়া ডেস্ক
  • আপডেট করা হয়েছে : ১৪-০৭-২০২২
বাংলাদেশ ওয়ানডেতে কেন এত শক্তিশালী ফাইল ফটো


চলতি ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে টেস্ট এবং টি-টোয়েন্টিতে ব্যর্থতার ষোলকলা পূর্ণ করার পর প্রিয় ফরম্যাটে ফিরতেই যেন বদলে গেছে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের প্রথম দুই ম্যাচ জিতে ইতোমধ্যে সিরিজ জয় নিশ্চিত করেছে লাল-সবুজ বাহিনী।

শুধু ক্যারিবীয় সফরেই নয়, গেল কয়েক বছরে ওয়ানডে ক্রিকেটে দুরন্ত দুর্বার বাংলাদেশ দল। সবশেষ ১৪ ম্যাচের মধ্যে টাইগারদের জয় ১১ ম্যাচে। ২০২০ সালে পূর্ণ মেয়াদে দায়িত্ব নেয়ার পর তামিমের নেতৃত্বে ২০টি ওয়ানডে খেলে জয় এসেছে ১৪ ম্যাচে।

ওয়ানডে সুপার লিগেও শক্ত অবস্থানে টিম টাইগার্স। ১৮ ম্যাচে ১২ জয়ে ১২০ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার দ্বিতীয় স্থানে আছে বাংলাদেশ। আর তাতে অনেকটাই নিশ্চিত হয়ে গেছে ২০২৩ ভারত বিশ্বকাপের সরাসরি পর্বে খেলা।

টেস্ট ও টি-টোয়েন্টির তুলনায় বাংলাদেশ এখন বেশি শক্তিশালী। ঘরের বাইরে বিদেশের মাটিতেও সিরিজ জিতে চলেছে টাইগাররা। গত মার্চে কঠিন প্রোটিয়া দুর্গে প্রথমবারের মতো ওয়ানডে সিরিজ জিতেছে বাংলাদেশ।

এদিকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টানা দশম জয় তুলে নেয়ার দিনে সংবাদ সম্মেলনে ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম জানালেন এই ফরম্যাটে সাফল্যের রহস্য। তিনি বলেন, এই (ওয়ানডে) ফরম্যাট খেলতে আমরা সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি এবং অনেক বেশি ম্যাচ খেলি। 

গত এক দশকে টেস্ট এবং টি-২০ ফরম্যাটের চেয়ে বাংলাদেশ ওয়ানডে ম্যাচ বেশি খেলেছে। ফরম্যাট চেনা হয়ে যাওয়ায় পরিকল্পনা সাজিয়ে খেলার সুযোগও থাকে বেশি। ঘরোয়া ক্রিকেটে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের চেয়ে যে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ বেশি গুরুত্ব পায় ওই ইঙ্গিতও করেছেন তিনি।

তামিম বলেন, ঘরোয়া ক্রিকেটেও আপনি যদি দেখেন, ঢাকা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লিগ আমার মনে হয় সব থেকে বেশি প্রতিযোগিতামূলক, যেটা আমরা বাংলাদেশে খেলি। সম্ভবত এ কারণে এই জায়গায় ফলাফলটা পক্ষে আসে। আর যে জায়গায় ফলাফল আসে, সেই জায়গার পরিবেশটা একটু ভিন্ন থাকে।

৫০ ওভারের ম্যাচে টাইগাররা অনেক দুর্বার হলেও জয়টা পেতে হয় অনেক কষ্ট করেই- সেটা জিম্বাবুয়ে হোক আর ইংল্যান্ড বা নিউজিল্যান্ড হোক। এমনটাই দাবি তামিমের।

তিনি বলেন, আপনি যার সঙ্গেই জিতেন না কেন, ইংল্যান্ড, নিউজিল্যান্ড বা জিম্বাবুয়ে, অনেক কষ্ট করেই ম্যাচ জিততে হয়। যে সেঞ্চুরি করে বা যে পাঁচ উইকেট শিকার করে, তাকেও অনেক কষ্ট করতে হয়। ফলে প্রত্যেকটা জয়ই আমাদের কাছে বিশেষ।

তামিম যোগ করেন, টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি হারের পর সবাই ওয়ানডেতে জিততে চাচ্ছিল। সবাই জেতার জন্য মুখিয়ে ছিল- এটাই আমাদের সাফল্যের রহস্য। এখনো বেশকিছু জায়গায় আমাদের ভালো করতে হবে। ২০২৩ আমাদের জন্য বেশ গুরুত্বপূর্ণ। 

রাজশাহীর সময়/এ