২৯ মে ২০২৪, বুধবার, ০৪:২৬:১৬ পূর্বাহ্ন


ছিনতাইকারির হাতে পুলিশের ওয়াকিটকি, আরএমপিতে তোলপাড়
মঈন উদ্দীন
  • আপডেট করা হয়েছে : ৩১-০১-২০২২
ছিনতাইকারির হাতে পুলিশের ওয়াকিটকি, আরএমপিতে তোলপাড় ফাইল ফটো


রাজশাহী নগরে টাকা ও মুঠোফোন ছিনতাইয়ের ঘটনায় গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের ভুয়া পরিচয় দেয়া দুইভাইকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে আটটার দিকে নগরের শিরোইলের শহীদ এ এইচ এম কামারুজ্জামান বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে দুজনকে আটক করে পুলিশ। এ সময় দুই ভাইয়ের কাছ থেকে পুলিশের দুটি ওয়াকিটকি উদ্ধার করা হয়। পরে ছিনতাই মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। ছিনতাইকারির কাছ থেকে ওয়াকিটকি উদ্ধারের ঘটনায় রাজশাহী পুলিশে তোলপাড়া চলছে।

গ্রেপ্তার দুজন হলেন: মাভেল ইসলাম ওরফে মাভেল (২৪) ও তাঁর ভাই নেহাল ইসলাম ওরফে নিরো (২২)। তাঁরা নগরের শাহমখদুম থানার বড়বনগ্রাম বাগানপাড়া এলাকার বাসিন্দা। দুজনকে রোববার দুপুরে আদালতে নেয়া হয়। বোয়ালিয়া থানা পুলিশ দুজনের জন্য সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, দুই ছিনতাইকারীর কাছে কী করে পুলিশের ওয়াকিটকি গেল, এ নিয়ে তদন্ত শুরু হয়েছে। ইতিমধ্যে প্রতিটা থানায় ওয়াকিটকির সংখ্যা যাচাই করা হচ্ছে। সেগুলোর সংখ্যা ঠিক আছে কি না, তা দেখা হচ্ছে। কোনো থানায় কিংবা পুলিশ ফাঁড়িতে ওয়াকিটকি কম আছে কি না, তা জানতে চেয়ে রাজশাহী মহানগর পুলিশ সদর দপ্তর থেকে চিঠি ইস্যু করা হয়েছে। এ বিষয়ে একটি বিশেষজ্ঞ দলও কাজ শুরু করেছে।

নগর পুলিশের একটি সূত্র জানায়, মাভেল ও নেহাল নগরের একটি থানার এক ওসি ও এসআইয়ের সোর্স হিসেবে কাজ করতেন। সম্প্রতি ওই দুজনকে অন্য স্থানে বদলি করা হয়েছে। পুলিশের সোর্স হিসেবে এই দুজন ছিনতাই ও মাদক ব্যবসা করে আসছিলেন। তাঁদের নামে আগেই অন্তত চারটি মামলা আছে। ওয়াকিটকি পাওয়ার ঘটনায় গতকাল দিনভর থানায় রেখে দুজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। তবে আজ দুপুরে আদালতে তুলে তাঁদের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন জানানো হয়েছে।

রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার মো. গোলাম রুহুল কুদ্দুস বলেন, পুলিশের বা আসলে কোনো ওয়াকিটকি কি না, এ বিষয়ে নিশ্চিত হতে তাঁদের বিশেষজ্ঞ দল কাজ করছে।

রাজশাহীর সময় /এএইচ